আপনি কি ইউটিউব এর ভিডিওর কন্টেন কোয়ালিটি সুন্দর করতে চান? নিয়ে চলে আসলাম ইউটিউবের ভিডিওর জন্য কপি মুক্ত ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক, ভিডিও ক্লিপ, ইমেজ ইত্যাদি!

আসসালামু আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহি ওয়াবারাকাতুহ। ইউটিউবে কাজ করি, তারা সাধারণত ভিডিও আপলোড করেই যাই তাই না! একজন ইউটিউবার এর কাজ যেহেতু কন্টেন ক্রিয়েট অর্থাৎ ভিডিও তৈরি। অনেকেই আবার এ প্রশ্ন করে যে, ভিডিওর কন্টেন কোয়ালিটি ঠিক থাকলেই মানুষ দেখতে পছন্দ করে।

ভিডিওর কন্টেন কোয়ালিটি ঠিক না থাকলে কোন লোকই ভিডিও দেখতে পছন্দ করেনা। অনেকেই আবার ইউটিউবের ভিডিওতে বিভিন্ন ধরনের ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক, ছোট ভিডিও ক্লিপ, ইমেজ ইত্যাদি দিতে চাই। কিন্তু ইউটিউব এর নিয়মকানুন মানার কারণে এগুলো তারা কিছুই করতে পারে না। কেননা পণ্যের ভিডিও ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক ভিডিও ছবি ইত্যাদি নিজের চ্যানেলে ব্যবহার করলে,

হয়তোবা আপনার ইউটিউব চ্যানেলে অরনিং আসতে পারে, এবং এই ধরনের warning ⚠️ আস্তে আস্তে একসময় অ্যাকাউন্ট ব্লক হইতে পারে। ঠিক এভাবেই আমরা আমাদের ভিডিও সৌন্দর্য বাড়াতে পারি না। ইউটিউব এর ভিডিও সৌন্দর্য বাড়ানোর জন্য, ভিডিওতে বিভিন্ন ধরনের ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক ভিডিও ক্লিপ ইত্যাদি ব্যবহার করতে হয়।

আসলে এগুলো ব্যবহার না করলে, ইউটিউব এর ভিডিওটি তেমন ভাল লাগেনা। ভিডিওর কন্টেন কোয়ালিটি এই ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক ভিডিও ক্লিপ এগুলো বাড়িয়ে দেয় প্রচুর পরিমাণে। আজকের আর্টিকেলে আমরা শিখতে অথবা জানতে চলেছি,,, ইউটিউবের ভিডিওতে ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক, ছোট্ট ভিডিও ক্লিপ, বিভিন্ন ধরনের ইমেজ, সম্পূর্ণ কপি মুক্ত সহজে কিভাবে কালেক্ট করা যায়।

কেন আপনি আপনার ইউটিউবের ভিডিওতে মিউজিক, ভিডিও ক্লিপ ইত্যাদি ব্যবহার করবেন?

আগেই বলেছি ভিডিওর কন্টেন কোয়ালিটি ঠিক রাখতে এই জিনিসগুলো প্রয়োজন হয়। আপনি যতই প্রফেশনালভাবে ভিডিও তৈরি করেন না কেন, ভিডিওটা যতই সুন্দর ভাবে এডিট করেন না কেন, আপনার ভিডিওতে সৌন্দর্য এবং মানুষের ধৈর্য ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক, এবং ছোট্ট ভিডিও ক্লিপ ধৈর্য ধরে দেখার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

আপনার জন্য আর লেখা

আপনি যত ভালোভাবে আপনার ভিডিওতে ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক, ছোট্টু ভিডিও ক্লিপ, বিভিন্ন ধরনের প্রয়োজনীয় ইমেজ ইত্যাদি ব্যবহার করবেন, ততই আপনার ভিডিওটি দেখতে সুন্দর হবে। এমনকি মানুষ ধৈর্য ধরে আপনার ভিডিওটি দেখার ইচ্ছুক হবে। যেটা কিনা সকল ইউটিউবারই যে কোন ভাবেই পেতে চাই। ঠিক এ কারণেই আমরা এই ধরনের ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক ভিডিও ক্লিপ নিজের ইউটিউবের ভিডিওতে ব্যবহার করব।

মাথায় রাখতে হবে, ইউটিউব এর কপিরাইট পলিসিঃ আপনি যদি আপনার ভিডিওতে বিভিন্ন ধরনের ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক অথবা ভিডিও ক্লিপ ব্যবহার করেন, তাহলে কিন্তু আপনার ভিডিওটি যদি কপিরাইট এর আন্ডারে পড়ে তাহলে, আপনার ইউটিউব চ্যানেল কিন্তু সাসপেন্ড হতে পারে। তাই বুঝে শুনে এদিকে আপনি পা বাড়াবেন।

কেননা একটু ভুলের থেকেই বড় বড় ভুল শুরু হয়। এবং ভুল হওয়ার কারণে আমাদের সব আশাভরসা ব্যর্থ হতে বাধ্য হয়। তাই আপনি যদি আপনার ইউটিউব চ্যানেলের ভিডিওতে, কোন ধরনের ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক, ছোট্ট ভিডিও ক্লিপ, যেকোনো ধরনের ইমেজ ইত্যাদি। ব্যবহার করতে চান তাহলে অবশ্যই, এগুলো কপিরাইট মুক্ত হয় যেন। তা না হলে আপনাকে অবশ্যই নানা রকম সমস্যায় পড়তে হবে।

কপি মুক্ত ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক, ছোট্ট ভিডিও ক্লিপ, ইমেজ ইত্যাদি কোথায় পাবো?

প্রিয় বন্ধুরা এগুলো যে শুধু আপনি নিজে ব্যবহার করেন সেটা কিন্তু নয়, আপনার আমার মত হাজার হাজার লোকের এইগুলো নিজদের ভিডিওতে ব্যবহার করে। তাই এগুলো আপনারা বর্তমান সময়ে সহজেই অনলাইনে পাবেন। অনলাইনে কপি মুক্ত ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক, ভিডিও ক্লিপ অথবা ইমেজ। এগুলো বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইটে আপনারা পেতে পারেন।

তবে একটা জিনিস সবসময় খেয়াল রাখবেন যে, সব কোম্পানিই একরকম নয়। অনেক কোম্পানি আপনাকে প্রথমে বলতে পারে কপিরাইট মুক্ত ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক অথবা ভিডিও। কিন্তু তারাই পরবর্তীতে আবার আপনার ইউটিউব চ্যানেলে কপিরাইট ক্লেইম স্ট্রাইক ইত্যাদি দিতে পারে। এমনকি আপনি হয়তো তার জন্য কপিরাইট পলিসি এর আন্ডারে পড়তে পারেন।

অবশ্যই এই ধরনের কপি মুক্ত ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক, ছোট্ট ভিডিও ক্লিপস, ইমেজ ইত্যাদি। কোন ওয়েবসাইট থেকে নেওয়ার পূর্বে, অবশ্যই যাচাই-বাছাই করে নিবেন। তা না হলে কি হবে সেটা তো বুঝতেই পারছেন তাইতো! যাইহোক বন্ধুরা আপনাদের জন্য আমরা কয়েকটি ওয়েবসাইট নিয়ে হাজির হয়েছি। যেগুলো খুবই জনপ্রিয় ওয়েবসাইট।

অনেকেই এই ধরনের ওয়েবসাইটে ইমেজ, ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক, এবং ভিডিও ক্লিপস ইত্যাদি ব্যবহার করে থাকে। তাই আপনারা নিঃসন্দেহেই এ ধরনের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে এগুলো সহজে কালেক্ট করতে পারবেন। বিচ্ছুরণ বন্ধুরা এমনই কিছু জনপ্রিয় ওয়েবসাইট এর সাথে এখন আমরা একটু জেনে নেওয়া যাক।

Pexels.com

আপনি যদি আপনার ভিডিওতে ছোট ছোট ভিডিও ক্লিপস ব্যবহার করতে চান তাহলে, একবার হলেও উপরোক্ত ওয়েবসাইটে প্রবেশ করবেন। কেননা উপরোক্ত ওয়েবসাইটে আপনারা বিভিন্ন ধরনের ছোট ছোট ভিডিও ক্লিপস পেয়ে যাবেন। এমনকি আপনারা এই ওয়েবসাইটে সম্পূর্ণ কপি মুক্ত ভিডিও ক্লিপস পাবেন এই ওয়েবসাইটটে। এই ওয়েবসাইটে বেশিরভাগ ভিডিও ক্লিপস কপি মুক্ত হয়ে থাকে।

যে কেউ চাইলে এই ওয়েবসাইটে ভিজিট করে, যেকোনো ছোট্ট ভিডিও ক্লিপস ডাউনলোড করতে পারে। তাই আপনারা যারা এই ওয়েবসাইটের ভিডিও ডাউনলোড করবেন তারা একটি বিষয় খেয়াল রাখবেন, ভিডিও ডাউনলোড করার পূর্বে তাদের দেস্ক্রিপশন চেক করবে। তাদের ডেসক্রিপশনে তারা যদি অনুমোদন দেয় তাহলে কোন প্রকার সমস্যা ছাড়াই ব্যবহার করবেন। কিন্তু অবশ্যই ভিডিও ক্লিপস ডাউনলোড করার পূর্বে যাচাই-বাছাই করে ডাউনলোড করবেন।

Filmstro.com

এই ওয়েবসাইটটি তাদের জন্য যারা ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক খুঁজে পায়না। যারা নিজেদের ভিডিওতে ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক ব্যবহার করতে চাই, তাদের জন্য এই ওয়েবসাইটটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। কেননা সরাসরি সম্পূর্ণ কপি মুক্ত ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক আপনারা এই ওয়েবসাইটে পেতে চলেছেন। এই ওয়েবসাইটে আপনারা সরাসরি অনেক ধরনের,, ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক সহজেই ডাউনলোড করতে পারবেন।

এমনকি বেশিরভাগ ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক এ আপনারা ক্রেডিট না দিয়ে নিজেদের ভিডিওতে ব্যবহার করতে পারবেন। তবে ডাউনলোড করার পূর্বে তাদের ডিটেলস ডেসক্রিপশন এ চেক করে নিবেন।

প্রত্যেকটি ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক এ আপনার ডাউনলোড সহজে এই ওয়েবসাইটে করার সুযোগ রয়েছে। তাই অবশ্যই যাচাই-বাছাই দেখেশুনে ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক ডাউনলোড করবেন এই ওয়েবসাইটে। তবে প্রত্যেকটি মিউজিক ডাউনলোড করার পূর্বে যাচাই-বাছাই করে নিবেন আশা করি।

Creative commons licence

সর্বশেষে আপনারা যদি ইমেজ ডাউনলোড করতে চান তাহলে, সর্বপ্রথম google-এ চলে যাবেন এবং আপনার চাহিদা অনুযায়ী ছবিটি সার্চ দিবেন। ফলাফলের ভিতরে ক্রিয়েটিভ কমন্স লাইসেন্স করা ইমেজ গুলো আপনারা গুগল থেকে সরাসরি ডাউনলোড করতে পারবেন। এমনকি ডাউনলোড করা ইমেজটি আপনারা আপনাদের ভিডিও তেও চাইলে ব্যবহার করতে পারেন।

ডাউনলোড করার পূর্বে অবশ্যই ক্রিয়েটিভ কমন লাইসেন্স এগুলো দেখে ইমেজ ডাউনলোড করবেন। ক্রিয়েটিভ কমন লাইসেন্স ব্যতীত আপনি যদি কোন ছবি ডাউনলোড করেন, আর যদিও ইমেজটি আপনার ইউটিউব এর ভিডিও তে ব্যবহার করেন তাহলে, তার জন্য কিন্তু আপনাকে নানা রকম সমস্যার সম্মুখীন নিয়ে পড়তে হবে। আপনি যদি একবার কপিরাইট এর আন্ডারে করেন তাহলে, আপনি কি অবশ্যই অনেক ধরনের সমস্যা হতে পারে।

যার জন্য হয়তোবা ইউটিউবে আপনাকে কপিরাইট পলিসি এর আন্ডারে করতে হবে। এমনকি ইউটিউবে আপনি কপিরাইট স্ট্রাইক অথবা কপিরাইট ক্লেইম পেতে পারেন। আর আপনারা তো জানেনই এই কপিরাইট পলিসি কত বড় মারাত্মক নিয়ম ইউটিউব। তাই অবশ্যই যা করবেন সেগুলো যাচাই-বাছাই করেই কাজ করবেন। আশা করি তাহলে কোন প্রকার ইউটিউব এর সমস্যা হবে না।

আর্টিকেল সম্পর্কিত শেষ কথা

প্রিয় বন্ধুরা, আজকে আমরা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি পয়েন্ট নিয়ে আলোচনা করেছি। সেটি হল ইউটিউব এর ভিডিওতে ব্যবহার করার জন্য, কপিরাইট মুক্ত বিভিন্ন ধরনের ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক, ভিডিওতে ব্যবহার করা ছোট্ট ক্লিপস, এমনকি ভিডিওতে ব্যবহার করার ইমেজ ইত্যাদি। এই বিষয়বস্তুগুলো নিয়ে আমরা step-by-step বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করেছি।

তবুও যদি আর্টিকেল সম্পর্কিত কোন প্রশ্ন অথবা মতামত থাকে তাহলে, অবশ্যই সেটা আমাদের কমেন্ট সেকশনে জানাতে একদম ভুলবেনা। আমাদের আজকের আর্টিকেলটি পড়ার জন্য সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আজকের আর্টিকেলটি এ পর্যন্ত দেখা হবে অন্য কোন আর্টিকেলে। আসসালামু আলাইকুম ওয়ারাহমাতুল্লাহি ওয়াবারাকাতুহু।

আপনার জন্য আর লেখা

Related Articles
Comments

You must be logged in to post a comment.