২০২২ সালে মোবাইল দিয়ে অনলাইনে টাকা ইনকাম করার উপায়

Earning : ৳6.000

আসসালামুয়ালাইকুম, সকলে কেমন আছেন, আসা করি সকলে ভালো আছেন। বর্তমান বিশ্বে প্রায় ৫৫০ কোটি এর মতো মোবাইল ইউজার রয়েছে। আর এই মোবাইল ইউজার এর সংখ্যাটা দিনদিন ভাবে বেড়ে চলেছে।

আর এতো বেশি পরিমানে মোবাইল ইউজার হওয়ার কারনে, আজকের দিনে মোবাইল দিয়ে অনলাইনে ইনকাম করার হাজার হাজার উপায় বের হয়েছে।

বন্ধুরা আর এই উপায় গুলো হলো এক একটি দক্ষতা, আপনার ভিতরে বা আপনি যদি শিখে অনলাইনে আয়ের কিছু দক্ষতা অর্জন করতে পারেন,

তাহলে তা অনুসরন করে আপনিও লক্ষ লক্ষ টাকা মোবাইল দিয়ে ঘরে বসে অনলাইনে ইনকাম করতে পারবেন ৷

আজ আপনাদের  মোবাইল দিয়ে অনলাইনে ইনকাম করার দুইটি বিষয় বলার চেষ্টা করব। যেগুলো মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার জন্য কার্যকরী উপায়,

আপনার যেন বুঝতে সমস্যা না হয় তাই লেখা টি বড় করে লেখা।

প্রথম বিষয়, ব্লগিং করে আয়।

ব্লগিং করে টাকা ইনকাম এর কথা কে না জানে, আর আপনার জন্য হতে পারে ব্লগিং করে আয় করা অন্যতম মাধ্যমে। তাই আপনার হাতে যদি একটি টাস ফোন থাকে, তাবে আপনি ব্লগিং করে আয় করতে পারেন।

কারন, বতর্মান সময়ের মোবাইল ফোন গুলোকে অনেকটা স্মার্ট করে তৈরি করা হচ্ছে, যার ফলে আপনি মোবাইল দিয়ে কম্পিউটারে বিভিন্ন কজ, অর্থাৎ অনলাইনের কাজ করতে পারবেন।

তাছাড়া, ব্লগিং হলো একটি ব্রাউজিং প্লাটফর্ম, যেটি কে আপনার ফোনের ব্রাউজার দিয়ে খুব সহজে ব্যবহার করেতে পারবেন। তারপরও সমস্যা হলে ব্রাউজারের থিরি ডডে ক্লিক করে ডেস্কটপ  মুড করে নিতে পারেন।

ব্লগিং করতে হলে আপনাকে অনেক কিছু জানতে হবে। নিচের কাজ গুলো অনুযায়ী আপনাকে কাজ করতে হবে। তাই মনোযোগ দিয়ে পড়ুন।

সবার আগে আপনাকে একটি ডোমেইন কিনতে হবে। অবশ্যই আপনার ব্লগের জন্য সুন্দর একটি ডোমেইন কিনবেন অর্থাৎ আপনার ব্লগের নাম।

তারপর আপনাকে একটি ব্লগ সাইট তৈরি করতে হবে। এরপর সেই ব্লগে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন বিষয়ে লেখালেখি করতে হবে, অর্থাৎ আপনি যে সম্পর্কে ভালো লেখালেখি করতে পারেন। তবে প্রতিনিয়ত সুন্দর সুন্দর আর্টিকেল লেখার চেষ্টা করবেন।

এছাড়া আপনি যে বিষয়ে ব্লগে লিখছেন তার একটি সুন্দর টাইটেল লিখতে হবে। টাইটেল টি এসইও করে নিবেন।

যেমন ধরুন গুগলের যে বিষয়ে বেশি সার্চ করা হচ্ছে সেই বিষয়ে টাইটেল লিখবেন। তাছাড়া আপনাকে ১০০% ইউনিক আর্টিকেল লিখতে হবে।

তারপর সেই লেখাগুলোতে কপিরাইট আছে কিনা তা চেক করতে হবে। তাছাড়া আপনার লেখায় গ্রামাটিক্যাল মিস্টেক আছে কিনা তা চেক করতে হবে।

আর আপনার লেখাটি পাবলিশ করার আগে অবশ্যই দেখে নিবেন লেখা টিতে কোনোরকম কপিরাইট আছে কিনা।

কপিরাইট থাকলে তা রিমুভ করে দিবেন। তারপর নতুন করে লিখবেন। না হয় আপনি গুগল থেকে অ্যাপ্রভাল এডসেন্স পাবেন না।

আর আপনার মূল লক্ষ হবে আপনার ব্লগে বেশি বেশি ভিজিটর নিয়ে আসা। এখন কথা হল আপনি কোথা থেকে এত ভিজিটর নিয়ে আসবেন।

সর্বপ্রথম আপনি যদি ব্লগের বিষয়টি সুন্দর করে লিখতে পারেন অর্থাৎ এসইও করতে পারেন তাহলে আপনার ভিজিটরের চিন্তা করতে হবে না।

কারণ হাজার হাজার ট্রাফিক সার্চ করে আপনার ব্লগের চলে আসবে। এছাড়া আপনি বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করতে পারেন, যেখান থেকে আপনি ভালো পরিমাণ ট্রাফিক আনতে পারবেন।

যেমন ফেইসবুক, ইউটিউব, টুইটার, পিন্টারেস্ট, থাম্বেল আর, লিনকেদিন ইত্যাদি সোশ্যাল মিডিয়া।

তবে ফেসবুক থেকে ট্রাফিক আনতে চাইলে অনেক ভালো পরিমাণ ট্রাফিক আনতে পারবেন কিন্তু সমস্যা হলো ফেসবুকে লিংক শেয়ার করা যায় না,

তবে আপনি কিছু টিপস এবং ট্রিক্স ‌এর মাধ্যমে ফেসবুক থেকে হাজার হাজার ট্রাফিক আপনার ব্লগে নিয়ে আসতে পারেন।

এর জন্য আপনাকে ফেসবুকের কমিউনিটি স্টান্ডার সম্পর্কে ভালোমতো জেনে নিতে হবে।

আপনার যদি তাতে সমস্যা হয় তাহলে পিন্টারেস্ট, টুইটার, লিঙ্কডইন, থাম্বেলআর, ইত্যাদি থেকে ভালো পরিমাণ ট্রাফিক আনতে পারেন এগুলোতে কোন সমস্যা আপনাকে ফেস করতে হবে না ।

আপনি যদি মোবাইল দিয়ে ব্লগিং করে টাকা আয় করতে চান, তাহলে উপরের টিপস গুলো কে অনুসরন করুন। তাহলে আপনি কোন ঝামেলা ছাড়াই ব্লগ লিখতে পারবেন এবং তাতে ট্রাফিকও আনতে পারবেন।

দ্বিতীয় বিষয় কনটেন্ট লিখে তা বিক্রি করে আয়।

বন্ধুরা আপনি যদি কোনো বিষয়ে ভালো লিখতে পারেন, তাহলে তা সম্পর্কে লিখে তা বিক্রি করে আয় করতে পারেন। আর এই কাজটাকে বলা হয় কনটেন্ট লিখে তা বিক্রি করে আয় অর্থাৎ সংক্ষেপে কনটেন্ট বিক্রি করে আয়।

আপনি যদি চান মোবাইল দিয়ে খুব সুন্দর কনটেন্ট লিখে ফেলতে পারেন। এখন বন্ধুরা আপনি যে কন্টেন্টটি পড়তেছেন তা আমার হাতের থাকা মোবাইল ফোন থেকে লেখা।

আর বন্ধুরা এই কনটেন্ট লেখার চাহিদা অনলাইনে অনেক বেশি বেড়ে চলেছে। বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং সাইট যেমন upwork.com fiverr.com freelancer.com ইত্যাদিতে আপনি কন্টেন্ট লিখে তা বিভিন্ন বায়ারের কাছে বিক্রি করতে পারেন। আর আপনি যদি এই ধরনের ফ্রিল্যান্সিং সাইটে ইংলিশে সুন্দর করে কনটেন্ট লিখতে পারেন,

তাহলে আপনি প্রতিটি কনটেন্ট এর জন্য ৩০০ থেকে ৫০০ ডলারের উপরে ইনকাম করতে পারবেন। যা বাংলাদেশী টাকায় ২৪ থেকে ৪৫ হাজার টাকার উপরে।

তাহলে বন্ধুরা বুঝতেই তো পারছেন ইংলিশে সুন্দর একটি আর্টিকেল লিখে, আপনি কি পরিমান ইনকাম করতে পারবেন।

তাছাড়া এমন অনেক সাইট রয়েছে, যেখানে আপনি ইংলিশে আর্টিকেল লিখে প্রতিশব্দের জন্য ৩ সেন্ট থেকে শুরু করে ১০ সেন্ট এর উপরে ইনকাম করতে পারেন। অর্থাৎ ২ থেকে ৮ টাকার ওপরে।

তবে বন্ধুরা মনে রাখবেন বাংলায় আর্টিকেল লিখে তা বিক্রি করে এত পরিমাণে ইনকাম করা যায় না। অর্থাৎ আপনি প্রতি আর্টিকেলে যেমন ৫০০ থেকে ১০০০ শব্দের একটি আর্টিকেলে সম্ভবত ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা পাবেন।

আপনি যদি ইংরেজিতে আর্টিকেল লিখতে না পারেন তাহলে আপনি বাংলায় আর্টিকেল লিখবেন। বাংলা আর্টিকেল লিখে বিক্রি সম্পর্কে গুগলের সার্চ দিলে বিভিন্ন সাইট চলে আসবে।

এছাড়া আপনি যদি চান আপনার আর্টিকেলটি যে আইটি আর্নিং প্লাটফর্মে এসে পাবলিশ করে আয় করতে পারেন।

জে আই টি ব্লগ এর সুবিধা হচ্ছে এই সাইটে আপনি আর্টিকেল লিখলে প্রতি আর্টিকেল ভিউতে আপনি টাকা পাবেন, যেমন ১০০০ ভিউতে ৫০০ থেকে ৮০০ টাকা পাবেন।

যেমন আপনি একটি আর্টিকেল লিখলেন সেই আর্টিকেলে যদি ২০ হাজার ভিউ হয়, তাহলে আপনি ১০০০০ হাজার থেকে ১৫০০০ হাজার টাকা পাবেন। অর্থাৎ যতদিন ভিউ হবে ততদিন টাকা পাবেন।

এখানে আপনার কোন ডোমেইন ক্রিয়েট করার প্রয়োজন নেই এবং এডসেন্স থেকে কোন অ্যাপ্রভাল পাওয়ার প্রয়োজন নেই শুধুমাত্র অ্যাকাউন্টে সাইন আপ করবেন, তারপর একাউন্ট ভেরিফিকেশন করে কাজ করবেন।

আর টাকা পাবেন সরাসরি মোবাইল রিচার্জ, বিকাশ, নগদ, রকেট ইত্যাদি বাংলাদেশী টাকা ট্রান্সফার সিস্টেমে।

বন্ধুরা আর্টিকেলটি পড়ে কেমন লাগলো তা কমেন্ট করে অবশ্যই জানিয়ে দিবেন। সকলে ভালো থাকুন আল্লাহ হাফেজ।

Related Articles
Comments

You must be logged in to post a comment.