বাংলাদেশে উদ্ভাবিত কিছু অসাধারণ প্রযুক্তি।

Earning : ৳0.600

১.রোবট লি: তার নাম লি। প্রায় চার ফুট উঁচুতে দাঁড়িয়ে তিনি মানুষের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন, হাঁটতে পারেন এবং বাংলায় যোগাযোগ করতে পারেন। সে এমনকি নাচতে পারে।

আমাদের চ্যানেলটি সাবসক্রাইব করুন

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (সাস্ট) পাঁচ শিক্ষার্থীর একটি দল “ফ্রাইডে ল্যাব” সম্প্রতি তৈরি করেছে লি হিউম্যানয়েড রোবট। সোমবার ক্যাম্পাসে একটি ইভেন্টে তারা আনুষ্ঠানিকভাবে লিকে পরিচয় করিয়ে দেন।

এর আগে ২০ এপ্রিল বিশ্ববিদ্যালয়ের টেক ফেস্টে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক ও বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবালের সামনে একটি ডেমো দেখানো হয়।

ফ্রাইডে ল্যাব আইসিটি বিভাগের অর্থায়নে হিউম্যানয়েড রোবট তৈরির জন্য তিন বছর ধরে কাজ করেছে, তারা জানিয়েছে। সাস্টের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রাক্তন ছাত্র এবং নর্থ ইস্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের লেকচারার নওশাদ সজিব এই দলের নেতৃত্ব দেন।

অন্য সদস্যরা হলেন স্থাপত্য বিভাগের মেহেদী হাসান; ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের সাইফুল ইসলাম এবং মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের সামিউল হাসান ও সুলতানা জ্যোতি।

তারা জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থীও তাদের প্রচেষ্টাকে সমর্থন করেছেন। হিউম্যানয়েড রোবটটির নামকরণ প্রসঙ্গে তারা জানান, বিলুপ্ত বাংলা অক্ষর ‘লি’ থেকে তারা এর নামকরণ করেছেন।

লি দাঁড়িয়ে দুই পায়ে হাঁটতে পারে। এছাড়াও তিনি হ্যান্ডশেক করতে পারেন, চোখের ইশারা করতে পারেন এবং নাচের চালগুলি প্রতিলিপি করতে পারেন।

নওশাদ বলেন, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সাহায্যে এটি দেশ ও মুক্তিযুদ্ধ সংক্রান্ত যেকোনো প্রশ্নের উত্তর দিতে পারে। বিকাশকারীরা বলেছেন যে লিকে উবুন্টু অপারেটিং সিস্টেমের সাথে পরিচালিত হচ্ছে এবং জাভা এবং পাইথন কোডিং ভাষা ব্যবহার করে প্রোগ্রাম করা হচ্ছে।

হিউম্যানয়েড রোবটটিতে আট গিগাবাইট রাম রয়েছে এবং এটি একটি কোর আই 5 প্রসেসর দিয়ে প্রক্রিয়া করা হচ্ছে। লির ভিতরে একটি অ্যান্ড্রয়েড ফোন সহ তিনটি মোটর এবং তিনটি মাইক্রো কন্ট্রোলার রয়েছে।

নওশাদ বলেন, “আমরা বিশ্বাস করি রোবট ভবিষ্যতে বিশেষ করে গৃহস্থালি ও অফিসের কাজে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। "আমরা লি ডেভেলপ করেছি এটা দেখানোর জন্য যে আমরা আমাদের দেশেও হিউম্যানয়েড রোবট তৈরি করতে পারি।"

২. মেডিকেল রোবট: ব্রাহ্মণবাড়িয়া পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের পাঁচ শিক্ষার্থী চমৎকার একটি রোবট তৈরি করেছে। রোবটটি একজন চিকিত্সকের বিকল্প হিসাবে ব্যবহার করা যেতে পারে। রোবটটির নাম দেওয়া হয়েছে 'মি. ইলেক্ট্রোমেডিক্যাল'।

এটি মানুষের শরীরের তাপমাত্রা, হার্টবিট, অক্সিজেনের পরিমাণ এবং রক্তচাপ পরিমাপ করতে সক্ষম। এছাড়া শুভেচ্ছাবার্তার সঙ্গে তার নাম, দেশের নাম, জাতির পিতার নাম এবং প্রধানমন্ত্রীর নাম বলতে পারবে। এসব কথা বাংলা ও ইংরেজিতে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের ইলেক্ট্রোমেডিক্যাল টেকনোলজি বিভাগের পাঁচ অষ্টম ব্যাচের শিক্ষার্থী আশিকুর রহমান, মোঃ আনাসুর রহমান, মোঃ মীর আমিন, মেহেদী হাসান এবং ষষ্ঠ ব্যাচের ছাত্র আব্দুল মোন্নাফ তৈরি করেন মি. মাত্র ১৫ দিনে ইলেক্ট্রোমেডিক্যাল রোবট।

ইলেক্ট্রোমেডিক্যাল টেকনোলজি বিভাগের জুনিয়র ইন্সট্রাক্টর (টেক) মোঃ আবুল কাসেমের সহায়তায় শিক্ষার্থীরা রোবটটি তৈরি করে। তারা তাদের নিজস্ব বিভাগ মিঃ ইলেক্ট্রোমেডিক্যালের নামে এটির নামকরণ করেছে। এতে খরচ হয়েছে প্রায় ৫০ হাজার টাকা। ওই বিভাগের শিক্ষার্থী ও কর্তৃপক্ষ খরচ বহন করে।

শিক্ষার্থীরা গত ২৩ জানুয়ারি ইনস্টিটিউটের কর্তৃপক্ষের কাছে রোবটটি হস্তান্তর করে। রোবটটি রাস্পবেরি পাই, আরডুইনো মেগা এবং আরডুইনো ইউএনও-র নিয়ন্ত্রণে রয়েছে এবং মানুষের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করার জন্য বেশ কিছু বৈশিষ্ট্য যুক্ত করা হয়েছে।

মিঃ ইলেক্ট্রোমেডিক্যাল মানবদেহের রক্তচাপ, রক্তের পরিমাণ, ইসিজি, হৃদস্পন্দন, কোলেস্টেরল, ইউরিক অ্যাসিড এবং রক্তে শর্করার পরিমাপ নির্ণয়ের জন্য প্রয়োজনীয় বেশ কয়েকটি পরীক্ষা করতে সক্ষম।

রোবটটিতে যুক্ত করা হয়েছে বিপি মনিটর, ইসিজি সেন্সর পালস অক্সিমেট্রি সেন্সর, জিসিইউ সেন্সর, ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর এবং থার্মাল স্ক্যানার। চলাচলের জন্য ক্যামেরা এবং আল্ট্রাসনিক সেন্সর লাগানো হয়েছে।

ইতিমধ্যে এই বৈশিষ্ট্যগুলি পরীক্ষামূলকভাবে ব্যবহার করা হয়েছে। সব ফিচারই ঠিকঠাক কাজ করেছে বলে দাবি প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষের।

পালস অক্সিমেট্রি সেন্সরে আঙুল রাখলে হার্টবিট এবং অক্সিজেনের পরিমাণ দেখানো হয়। রোবটের হাতে থাকা থার্মাল স্ক্যানার শরীরের তাপমাত্রা মাপাচ্ছে এবং রক্তচাপ মাপার যন্ত্র সহজেই বলে দিতে পারে উচ্চ বা নিম্ন রক্তচাপ।

এছাড়া কোলেস্টেরল, ইউরিক এসিড, ব্লাড সুগার ও ব্লাড গ্রুপ জিসিইউ সেন্সরের মাধ্যমে রিপোর্ট করা হয়। রোবটটি মাদকাসক্তি সনাক্ত করতে এবং রিপোর্ট করার জন্য একটি নতুন বৈশিষ্ট্য হিসাবে অ্যালকোহল ডিটেক্টর এবং ফায়ার অ্যালার্ম যুক্ত করার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

যে কোনো জায়গা থেকে রোবট নিয়ন্ত্রণের জন্য একটি মোবাইল অ্যাপ তৈরিতেও কাজ করছেন পাঁচ শিক্ষার্থী।

ইলেক্ট্রোমেডিকেল টেকনোলজি বিভাগের অষ্টম ব্যাচের শিক্ষার্থী আশিকুর রহমান বলেন, ডায়াগনস্টিক সেন্টারে যে সব পরীক্ষা করা যায় তা আমাদের রোবট দিয়ে করানো যায়।

হাসপাতালে ডাক্তার না থাকলেও আমরা চেষ্টা করছি এটিকে আরও আধুনিক ও অত্যাধুনিক করার যাতে বিকল্প হিসেবে আমাদের রোবট কাজ করতে পারে। যদি চিকিৎসার কাজে আসে তাহলে আমাদের শ্রম সার্থক হবে।

তিনি বলেন, করোনাভাইরাস ইস্যুতেও রোবট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ভয়ে কেউ না গেলেও রোবট আক্রান্ত ব্যক্তির কাছে গিয়ে তার শরীরের তাপমাত্রা, রক্তচাপ, হার্টবিট এবং অক্সিজেন পরিমাপ করতে পারে। একই সঙ্গে আক্রান্ত ব্যক্তিকে ওষুধ ও খাবার সরবরাহ করতে পারবেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ইলেকট্রোমেডিকাল টেকনোলজি বিভাগের জুনিয়র ইন্সট্রাক্টর আবুল কাসেম বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমরা প্রাথমিকভাবে রোবটটি পরীক্ষা করেছি।

রোবটটি আমাদের প্রত্যাশার চেয়ে বেশি সাড়া দিয়েছে। প্রয়োজনীয় আর্থিক সহায়তা পেলে এটিকে বাণিজ্যিকভাবে কার্যকর করাও সম্ভব।তিনি বলেন, রোবটে আরও নতুন ফিচার যুক্ত করা হচ্ছে। রোবটটি বাজারে ছাড়তে খরচ হবে প্রায় এক লাখ টাকা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ শাহ আলম বলেন, মেডিকেল রোবটের ধারণা সম্পূর্ণ নতুন। রোবটটি ভালভাবে পরীক্ষা করা দরকার। ফলাফল ইতিবাচক হলে, এটি হাসপাতালে ব্যবহার করা যেতে পারে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খান বলেন, বিষয়টি এখনো কেউ আমাকে জানায়নি। কিন্তু আমি খুঁজে বের করব। তা হলে তারা সব ধরনের সহযোগিতা পাবে।

৩.জয় বড়ুয়ার রোবটিক হাত: যখন একটি হাত হারিয়ে যায় বা কেটে যায়, তখন একটি কৃত্রিম হাত একজন ব্যক্তির পুনর্বাসনে সহায়তা করতে পারে।

যাইহোক, এই ধরনের রোবটিক হাত একটি বিশাল খরচ সঙ্গে আসে. জয় বড়ুয়া লাবলু, একজন বাংলাদেশী যুবকের একটি মিশন রয়েছে যারা অভাবী সকলকে সাশ্রয়ী মূল্যে এই ধরনের হাত সরবরাহ করা।

জয় বড়ুয়া এর আগে রোবটিক হাত তৈরি করেছেন যা ঘরের কাজ বা ঝুঁকিপূর্ণ মিশন করতে পারে। ২০২০ সালে, তিনি কোন অঙ্গবিহীন লোকদের জন্য বায়োনিক কৃত্রিম হাত তৈরি করার লক্ষ্য নিয়েছিলেন।

প্রায় এক বছরের গবেষণা ও পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর, জয় বড়ুয়া ২০২১ সালের সেপ্টেম্বরে বান্দরবান থেকে হাত ছাড়া একজন ব্যক্তির উপর তার প্রথম ট্রায়াল শুরু করেন, ব্যাপক সাফল্য পান।

এখন তার হাতে ২০০ টিরও বেশি অর্ডার রয়েছে যার মধ্যে কিছু ভারত, মালয়েশিয়া এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের। তিনি ইতিমধ্যেই তুরস্কে তার প্রথম আন্তর্জাতিক অর্ডার পাঠিয়েছেন।

একজন ব্যক্তির কী ধরনের বায়োনিক কৃত্রিম হাত প্রয়োজন তা নির্ধারণ করার আগে, জয় বড়ুয়া ইলেক্ট্রোমাইগ্রাফি (ইএমজি) এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় পরীক্ষা করেন।

প্রতিটি হাত একচেটিয়াভাবে প্রতিটি ব্যক্তির জন্য কাস্টমাইজ করা হয়. চার ধরনের রোবটিক হাত রয়েছে তার ওয়ার্কশপে।

ইএমজি পরীক্ষা পজিটিভ হলে প্রথম ধরনের হাত হল 'ইএমজি-কন্ট্রোল রোবোটিক হ্যান্ড'। এটি তাদের জন্য যাদের একটি অঙ্গ বা হাত নেই কিন্তু নিউরো-লিঙ্কড সহায়তায় রোবটিক হাত নিয়ন্ত্রণ করতে পারে।

এটি ব্যবহারকারীর মস্তিষ্ক থেকে উদ্ভূত স্নায়ু সংকেতের সাহায্যে কাজ করে। কখনও কখনও, হাতের স্নায়ু সক্রিয়ভাবে কাজ করে না এবং ইএমজি পরীক্ষা সফল হয় না, ইএমজি-নিয়ন্ত্রণ রোবোটিক হাতকে নির্দিষ্ট পরিস্থিতিতে একটি অনন্য সমাধান করে তোলে। এই ধরনের ক্ষেত্রে, রোগীদের স্বয়ং-নিয়ন্ত্রণ হাত প্রদান করা হয়।

এগুলি একটি স্বয়ংক্রিয় নিয়ন্ত্রণ সুইচের সাহায্যে কাজ করে যার স্নায়ুর সাথে কিছুই করার নেই।দুই ধরনের স্বয়ং-নিয়ন্ত্রণ হাত হতে পারে। প্রথমটি হ'ল ভয়েস-কন্ট্রোল হ্যান্ড যা ব্যবহারকারীর ভয়েস দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হতে পারে, ভয়েস রিকগনিশন প্রোগ্রামিংয়ের সাহায্যে তৈরি একটি ডিভাইস।

ব্যবহারকারীর অনুরোধ অনুযায়ী, ভাষাটি ইংরেজি বা বাংলায় সেট করা যেতে পারে। অন্য ধরনের স্বয়ং-নিয়ন্ত্রণ হাত হল পা-নিয়ন্ত্রণ হাত, যা মালিকের পায়ের আঙ্গুলের নড়াচড়ার মাধ্যমে কাজ করে।

যখন একজন ব্যক্তির কোন হাত থাকে না, তখন একটি ছোট ট্রান্সমিটার তার পায়ের আঙ্গুলে সেট করা হয় যা রোবটিক হাতে তাদের নড়াচড়ার মাধ্যমে একটি বেতার সংকেত প্রদান করে।

এগুলি ছাড়াও আরও দুই ধরনের রোবটিক হাত রয়েছে যা জয় বড়ুয়া তৈরি করেন। রোবোটিক্স থার্ড হ্যান্ড তাদের জন্য যাদের উভয় হাত আছে কিন্তু দক্ষতা বাড়াতে অতিরিক্ত কাজের জন্য আরেকটি প্রয়োজন। এটি একটি বেল্টের সাহায্যে একজন ব্যক্তির পিছনে এটি স্থাপন করে ব্যবহার করা যেতে পারে।

ওয়্যারলেস রোবোটিক হ্যান্ড নামে আরেকটি হল অগ্নিনির্বাপণের মতো বিপজ্জনক কাজে জড়িতদের জন্য। একটি ট্রান্সমিটার সেই হাতের মালিকের সাথে সংযুক্ত থাকে যা তার গতিবিধি অনুলিপি করে এবং রোবোটিক হাতে সংকেত পাঠায়,

যা ব্যবহারকারীর থেকে ৮০০ মিটার দূরে কাজ করে। একটি বায়োনিক কৃত্রিম হাতের দাম হতে পারে টাকা থেকে ৩০,০০০ থেকে টাকা ১ লাখ।

নিম্ন বা নিম্ন-মধ্যবিত্ত পরিবারের লোকেদের জন্য, লাবলু ১,০০০ টাকার মধ্যে কৃত্রিম হাত দেওয়ার চেষ্টা করে। ২৫,০০০ থেকে ৩০,০০০ কিন্তু এগুলো সিলিকন কভার ছাড়া। খরচ হবে কমপক্ষে ৫০ হাজার টাকা।

T ৪০,০০০ থেকে ৫০,০০০ এই ধরনের হাতে সিলিকন গ্লাভস আছে, যা একটি বাস্তব হাতের চেহারা এবং অতিরিক্ত সুরক্ষা প্রদান করে। বিভিন্ন ধরণের রোবোটিক হাতের বিষয়ে তার কাজের জন্য,

জয় বড়ুয়া লাবলু ২০১৮ সালে ESSAB-এর 'আবিষ্কারের খোঁজে' প্রথম রানার আপ হয়েছিলেন এবং চট্টগ্রাম জেলা থেকে নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০১৯-এ জেলা বিজয়ী হয়েছিলেন। চ্যানেল আই-এর 'এশো রোবট বানাই' টিভি শো-এর কৃষি রাউন্ডেও দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেন তিনি।

এছাড়া তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজিত প্রতিযোগিতা, বিজ্ঞান মেলা, চট্টগ্রাম ও হাটহাজারীতে স্থানীয়ভাবে আয়োজিত প্রতিযোগিতায় বেশ কিছু পুরস্কারও জিতেছেন।

৪. রোবট মিনা: শিক্ষকরা বলেছেন 'এমন কিছু উদ্ভাবন করুন যেন আমরা বিজ্ঞান মেলায় শীর্ষস্থান পাই'। এতে তিন শিক্ষার্থী মিলে একটি রোবট তৈরি করেন। নাম 'মিনা'। বিজ্ঞান মেলায় দ্বিতীয় স্থান অর্জনসহ ভার্চুয়াল জগতে বেশ সাড়া ফেলেছে মীনা।

সংযুক্ত তথ্য অনুযায়ী, মীনা তাৎক্ষণিকভাবে প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছেন। রোবটটিকে আরও অভিযোজিত এবং হাঁটার যোগ্য করার প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

কিন্তু আর্থিক সংকট রয়েছে। আর লক্ষ্মীপুর পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের তিন শিক্ষার্থী সংকট কাটলেই বাজার পূর্ণ করার স্বপ্ন দেখছেন। জানা যায়, প্রতিষ্ঠানটির ইলেকট্রনিক্স বিভাগের ৬ষ্ঠ সেমিস্টারের শিক্ষার্থী ইয়াছিন আরাফাত হৃদয়, শান্তনু আচার্য ও মেহরাজ হোসেন সাগর মীনাকে তৈরি করেন।

এদের মধ্যে ইয়াছিন ও সাগর নোয়াখালীর এবং শান্তনু চাঁদপুর জেলার শিশু। মিনা তৈরিতে শিক্ষকদের উৎসাহ ও সহযোগিতা করেছেন।

 রোবটটি ছোট পরিসরে তৈরি করে বিজ্ঞান মেলায় উপস্থাপন করা হয়েছে। তবে হাঁটার উপযোগী করা সম্ভব হয়নি। রোবট মিনা যোগ করা তথ্য অনুযায়ী প্রশ্ন করেই উত্তর দিতে পারে।

এটি শিশুদের বিনোদনের মাধ্যমে পড়া শেখানোর জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। মিনাকে নিরাপত্তারক্ষী হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে।

বাড়িতে আগুন লাগলে মীনা ডিভাইসে থাকা মোবাইল ফোন নম্বরে কল করে সতর্কতা পাঠাতে পারেন। রোবট মিনা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাম সম্বলিত গানসহ বিভিন্ন গান গাইতে পারে।

কারিগরি শিক্ষা বোর্ড বা অন্য কোনো প্রতিষ্ঠান সহযোগিতা করলে রোবট মিনাকে আরও সমৃদ্ধভাবে বাজারজাত করা যাবে বলে জানান তিন শিক্ষার্থী।

লক্ষ্মীপুর পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষ জয়দেব চন্দ্র সাহা বলেন, 'আমাদের চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় রবার্ট মীনা একটি সময়োপযোগী পদক্ষেপ।

শিক্ষার্থীদের এই উদ্ভাবন জাতীয় ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে সহায়ক হবে। মিনা এখন ছোট পরিসরে। আরও প্রচারের জন্য সংগঠনের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ সহযোগিতা করা হবে। এছাড়া যেসব প্রতিষ্ঠান এসব উদ্ভাবন নিয়ে কাজ করছে তাদের সহযোগিতার আহ্বান জানানো হয়।

৫.রোবট রিবো: রিবো হল প্রথম সামাজিক মানবিক রোবট যেটি বাংলায় কথা বলতে পারে। রিবো তৈরি করেছে সাস্ট, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশের একটি রোবোটিক্স গ্রুপ।

 

দলটির তত্ত্বাবধানে ছিলেন মোহাম্মদ জাফর ইকবাল। এই হিউম্যানয়েড রোবট রিবো তৈরিতে অর্থায়ন করেছে বাংলাদেশ সায়েন্স ফিকশন সোসাইটি।

১১ ডিসেম্বর ২০১৫ তারিখে শাহবাগের পাবলিক লাইব্রেরিতে অনুষ্ঠিত একটি সায়েন্স ফিকশন ফেস্টিভ্যালে রিবো প্রথম জনসমক্ষে উপস্থিত হন।রোবোসাস্ট এর 11 সদস্যের দলটি শুরু হওয়ার পর থেকে অনেক রোবোটিক্স প্রকল্পে কাজ করছে।

SUSTU প্রকল্পটি একটি মানবিক রোবট গঠনের উদ্বোধন ছিল। এটি একটি কাগজে তার নাম লিখতে এবং দেখানো নির্দেশাবলী অনুসরণ করতে সক্ষম হয়েছিল।

বাংলাদেশ সায়েন্স ফিকশন সোসাইটি একটি হিউম্যানয়েড রোবটকে বার্ষিক সায়েন্স ফিকশন ফেস্টিভ্যালে প্রতিনিধিত্ব করার জন্য স্পনসর করেছে।

এরপর নভেম্বরে পুরোদমে কাজ শুরু করে দলটি। বিপুল সম্ভাবনার সাথে, তারা সময়ের মধ্যে বাংলাদেশের প্রথম সামাজিক মানবিক রোবটটি প্রদর্শন করতে সক্ষম হয়েছিল যার নাম ছিল রিবো।

রিবোর স্বাধীনতার ২৪ ডিগ্রি রয়েছে। এটি একটি উপরের ধড় রোবট। এতে নিম্নলিখিত বৈশিষ্ট্যগুলি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে: নাচ, মুখের অভিব্যক্তি দেখায়, লোকেদের সাথে হ্যান্ডশেক করা, হাত উপরে এবং নিচে বলা,

যার সাথে কথা বলা হচ্ছে তার সাথে চোখের যোগাযোগ করা, বাংলায় কথোপকথন করা এবং তার নামের সাথে সাড়া দেওয়া। রিবো মানুষের মুখের ভঙ্গি বুঝতে পারে। রিবো একটি উপরের ধড় হিউম্যানয়েড রোবট যা মানুষের সাথে যোগাযোগ করতে সক্ষম। এটি স্বাধীনতার ২৪ ডিগ্রি বৈশিষ্ট্যযুক্ত।

এটি হার্ডওয়্যার নিয়ন্ত্রণের জন্য আরেকটি অতিরিক্ত প্রসেসর সহ 6GB RAM এর একটি Core-2 Duo প্রসেসরে চলে। রিবো উবুন্টু এবং একটি উইন্ডোজ-ভিত্তিক অপারেটিং সিস্টেম দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়।

OS একটি ক্যামেরা, একটি RGB সহ একটি মাইক্রোফোন অ্যারে এবং একটি গভীরতার ক্যামেরা সহ রোবটের মাল্টিমিডিয়া সিস্টেমকে ক্ষমতা দেয়৷ Kinect ডিভাইসের মাইক্রোফোন অ্যারে 3D শব্দ স্থানীয়করণের জন্য শব্দ উত্স হিসাবে ব্যবহৃত হয়েছিল।

রিবো রোবোটিক ভয়েস রূপান্তরের জন্য টেক্সট-টু-স্পিচ সংশ্লেষণ ব্যবহার করে। ডানদিকে, কেউ তার হাত ধরেছে কিনা তা বোঝার জন্য রিবো একটি স্পর্শ সেন্সর ব্যবহার করে।

চোখের গোলাগুলির ভিতরে, চোখের গভীরতা অনুভব করার জন্য ক্যামেরা রয়েছে। চোখের পাপড়ি রিবোকে মানুষের মতো চোখের পলক ফেলতে সাহায্য করে এবং ভ্রু বিভিন্ন মুখের ভাব দেখাতে সাহায্য করে।

একটি সমর্থন ভেক্টর মেশিন ব্যবহার করে, রিবো মুখের অঙ্গভঙ্গি বুঝতে পারে।

৬.আরমানের প্লেন: গোপালগঞ্জের আরমানুল ইসলাম নামের এক যুবক রিমোট কন্ট্রোল প্লেন বানিয়ে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন। তার উদ্ভাবিত ছোট বিমানটির ওজন ৮০০ গ্রাম এবং এর দৈর্ঘ্য ৩৬ ইঞ্চি এবং একটি ডানা ৫০ ইঞ্চি। প্লেনে পিতলের কম ডিসি মোটর ব্যবহার করা হয়। মোটরের গতি নিয়ন্ত্রণের জন্য আরও ৪টি বৈদ্যুতিক সার্ভো মোটর যুক্ত করা হয়েছে।

প্লেনটি ছয়-চ্যানেল রিমোট দিয়ে সজ্জিত। বিমানটি দেড় কিলোমিটার রেঞ্জ পর্যন্ত চলতে পারে। তবে প্রযুক্তি ব্যবহার করলে পরিসর বাড়ানো সম্ভব বলে তিনি উল্লেখ করেন।আরমানুল গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার পুইশুর ইউনিয়ন। হাফিজুর রহমান সমদ্দারের একমাত্র ছেলে।

সে একই উপজেলার রামদিয়া এসকে কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক বিজ্ঞান বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্র। নিম্ন-মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান হওয়ায় পড়াশোনার পাশাপাশি উদ্ভাবনী কাজ করে যাচ্ছেন আরমানুল।

এটা সত্যিই প্রশংসনীয় বলে জানান কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।নবম শ্রেণীতে পড়ার সময় তিনি একটি প্লেন বানানোর চিন্তা করেন। কিন্তু এক অর্থে তখন তা হয়নি।

পরে কলেজে ভর্তি হওয়ার পর তার প্রবল ইচ্ছার কারণে তার বাবা দাদি হাফিজা বেগম ও তার সহকর্মী জসিয়া আক্তারের বাবা দুবাই প্রবাসী এনামুল হক তাকে বিমান তৈরির জন্য সাড়ে বারো হাজার টাকা দেন।

২০১৭ সালের ডিসেম্বরের শেষের দিকে তার প্লেন তৈরির কাজ শুরু হয়। নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার পর, ৮ জানুয়ারী এসকে কলেজ মাঠে বিমানটি পরীক্ষামূলকভাবে উড্ডয়ন করা হয়। প্রায় ১৫ মিনিট উড়ে যাওয়ার পর বিমানটি অবতরণ করে। তার বিমান দেখতে বিপুল সংখ্যক মানুষ ভিড় করেন।

আরমানুলের সহযোগী জসিয়া আক্তার জানান, আরমানুল ভাইয়ের শখ ছিল বিমান তৈরি করে আকাশে উড়ান। তিনি আমাকে বলতেন প্লেন বানাতে কি করতে হবে। তখন আমিও তাকে এই কাজে সাহায্য করতে চাই। পরে আমি তার সাথে প্লেন বানানোর কাজ করেছি।

৭.সোহেল হাওলাদারের হেলিকপ্টার: বরগুনার সোহেল হাওলাদার (৩২)। পেশায় একজন মোটর মেকানিক। বরগুনার পুরাকাটা ফেরি ঘাটে মোটরসাইকেল মেকানিকের কাজ করেন।

প্রায় ছয় মাস আগে পুরনো মোটরসাইকেলের বডি ব্যবহার করে দ্রুত গতির স্পীডবোট বানিয়ে সবাইকে চমকে দিয়েছিলাম। এবার নিজের প্রযুক্তি ব্যবহার করে হেলিকপ্টার তৈরি করছেন তিনি।সোহেল রানা সদর উপজেলার ৬নং বুড়িরচর ইউনিয়নের পুরাকাটা গ্রামের বাসিন্দা ফরিদ হাওলাদারের ছেলে। চার ভাই বোনের মধ্যে সোহেল সবার বড়।

অন্য কথায়, তিনি বেশি পড়াশোনা করতে পারেননি। ৫ম শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশুনা করেছেন। কিছুদিন পর ট্রলারটি ছিনতাই হলে তিনি মিস্ত্রির কাজ শুরু করেন। বরগুনার পুরাকাটায় 'মেয়ের দোয়া' নামে একটি মোটরসাইকেল সার্ভিস সেন্টার তৈরি করেছে। হেলিকপ্টারের বডি ও ফ্যান তৈরিতে এরই মধ্যে ১৫ হাজার টাকা খরচ করেছেন তিনি।

আর মেশিন কেনার টাকা না থাকায় তার উদ্ভাবিত স্পিডবোট মেশিন খুলে হেলিকপ্টারের সাথে সংযুক্ত করার চেষ্টা করেও সে ভালোভাবে সফল হতে পারেনি।সোহেল রানা বলেন, এই প্রযুক্তির সাহায্যে হেলিকপ্টার আকাশে ওড়াতে তার উন্নত ফ্যান ও মেশিনসহ আরও কিছু যন্ত্রাংশ প্রয়োজন।

কিন্তু টাকার অভাবে সেসব যন্ত্রাংশ কিনতে পারছেন না।সোহেল রানার মা রেনু বেগম বলেন, "স্পীডবোট বানানোর সময় তার ছেলেকে অনেকের বাজে কথা শুনতে হয়েছে।

স্পিডবোট বানানোর পর অনেকেই আশা করেছিল সোহেল আরও কিছু করবে। আর হেলিকপ্টারের প্রপেলার যখন ঘুরছে, তখন আমার মন কাঁদছে, তখন আমি ভাবলাম তাকে পড়ালেখা করাতে পারি।

৮.রোবট রবিন: রোবট রবিন, বরিশালের স্কুল ছাত্র শুভ কর্মকারের বুদ্ধিবৃত্তিক, একটি অতি-আধুনিক রোবট যে বাংলা এবং ইংরেজি উভয়ই বলতে পারে,

একটি ডাটাবেস থেকে প্রশ্নের উত্তর দেয় এবং বিভিন্ন ধরণের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সরবরাহ করে।প্রায় যেকোনো প্রশ্নের উত্তর মিনিটের মধ্যে দিয়ে, রোবটটি বলতে পারে কে তাকে তৈরি করেছে এবং তার দেশ, রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর নাম।

রোবট রবিন একজন কৃষককে তার খামারে কী পরিমাণ কীটনাশক ব্যবহার করতে হবে এবং সেগুলি ব্যবহারের সময়সূচী সম্পর্কে তথ্য সরবরাহ করতে পারে। তিনি ওষুধ এবং শিক্ষা সংক্রান্ত যেকোন তথ্য দিতে পারেন।

রোবটটি আশেপাশে আগুন লাগলে ফায়ার সার্ভিসকে জানাতে পারে এবং দমকলকর্মীরা গুগল ম্যাপে তার অবস্থান দেখতে পাবেন।শুভ আগৈলঝাড়া উপজেলার কালুপাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

তিনি ব্যবসায়ী সন্তোষ কর্মকার এবং গৃহবধূ দীপ্তি কর্মকারের ঘরে জন্মগ্রহণ করেন। শুভ, দুই ভাইয়ের মধ্যে বড়, সরকারি গাইলা মডেল স্কুলে 10 শ্রেণীতে বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র।তিনি বিজ্ঞান মেলায় অংশগ্রহণ করতে ভালোবাসেন এবং সারা দেশে অনুষ্ঠিত বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় বেশ কিছু পুরস্কার জিতেছেন।

শুভ একদিন রোবট বানানোর কথা ভাবল, কিন্তু সেটা হবে অটোমেটনের চেয়েও বেশি কিছু। তিনি মে 2018 থেকে তার প্রকল্পে কাজ শুরু করেন।শুভ চলতি বছরের জানুয়ারিতে রোবটের প্রাথমিক কাজ শেষ করে তার নাম রাখেন রবিন।

তরুণ বিজ্ঞানী বলেন, "আমি একটি আমেরিকান কার্টুন শোয়ের সুপারহিরোর নামানুসারে আমার রোবটের নাম রেখেছি। ইন্টারনেট থেকে সংগৃহীত তথ্য এবং ইউটিউব থেকে সম্পর্কিত ভিডিওগুলি দেখে রবিন তৈরি করা হয়েছিল।রবিন বলেন,"আমি রবিনের উন্নতির জন্য কাজ করে যাচ্ছি।

বর্তমানে তার দৃষ্টিশক্তি নেই, তবে ভবিষ্যতে সে সব কিছু দেখতে পারবে এবং যে কোনো মানুষকে একবার দেখলে চিনতে পারবে। বিভিন্ন সমস্যার সমাধানও করতে পারবে। এই রোবটের সবচেয়ে বড় বিষয় হল সে নিজে অনেক কিছু শিখতে সক্ষম।" 

"রবিনের কোন কোডিং এর প্রয়োজন নেই, যার মানে সে স্ব-শিক্ষার কিছু কৌশল আয়ত্ত করেছে।"আগৈলঝাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিপুল চন্দ্র দাস বলেন, শুভ শুধু উপজেলার গর্ব নয়, পুরো বরিশাল জেলার জন্য সম্মান বয়ে এনেছে।

"বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায় কথা বলতে সক্ষম একটি রোবট তৈরিতে তার সাফল্য সারা দেশের জন্য একটি সাফল্য। উপজেলা প্রশাসন তাকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে যাতে সে তার প্রচেষ্টায় সফল হতে পারে।"

৮.আকাশের ল্যাম্বরগিনি: যারা বিশ্ব-বিখ্যাত ব্র্যান্ডের গাড়ির সাথে তুলনা করেন তারা অবশ্যই ল্যাম্বরগিনি নামটি শুনবেন। এই ইতালীয় অটোমোবাইল ব্র্যান্ডের গাড়িগুলি নজরকাড়া এবং স্টাইলিশ।

বিখ্যাত সেলিব্রিটি এবং ধনীদের পছন্দের তালিকায় এই গাড়িটি শীর্ষে রয়েছে। দাম খুব একটা কম নয়। ল্যাম্বরগিনি কিনতে হলে কোটি টাকা খরচ করতে হবে।

এমন দামি গাড়ির স্বপ্ন দেখতে পারে সাধারণ মানুষ। কিন্তু বাস্তবে, ল্যাম্বরগিনির মালিকানা কোনো কাজ নয়। কিন্তু যদি একটি প্রাইভেট ল্যাম্বরগিনি কম দামে পাওয়া যায়? তাও আবার আমাদের বাংলাদেশে।

অনেকের কাছে কাল্পনিক মনে হলেও সেই জল্পনাকে সত্যি করে দেখালেন বাংলাদেশের তরুণ আকাশ আহমেদ। তিনি তার অটোরিকশা গ্যারেজে তার স্বপ্নের ল্যাম্বরগিনি তৈরি করেন।

নারায়ণগঞ্জের লামাপাড়ার নবী হোসেনের ছেলে আকাশ আহমেদ। সে স্কুলে চতুর্থ শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করেছে। এরপর নবম শ্রেণী পর্যন্ত মাদ্রাসার ছাত্র ছিলেন।

এরপর আর পড়াশোনা চালিয়ে যেতে পারেননি। তার বাবা নবী হোসেনের একটি অটোরিকশা গ্যারেজ/ওয়ার্কশপ রয়েছে। ছোটবেলা থেকেই এই ওয়ার্কশপে খেলে বড় হয়েছে আকাশ। ওয়ার্কশপের গাড়ি মেরামতের সরঞ্জাম ছিল তার খেলনা সামগ্রী। এবং আমার একটি স্বপ্ন ছিল - একদিন আমি নিজেই একটি গাড়ি তৈরি করব।

২০১৩ সালে ল্যাম্বরগিনি বানানোর স্বপ্ন শুরু হয়েছিল। জনপ্রিয় মিডিয়া বিবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে আকাশ আহমেদ বলেছেন যে তিনি ইমরান খানের স্যাটিসফিয়া গানে একটি ল্যাম্বরগিনি গাড়ি দেখে তার নজর কেড়েছেন। আর সেই দিন থেকেই এই মডেলের গাড়ি একদিন নিজের হাতে বানানোর সিদ্ধান্ত নেন তিনি।

পড়ালেখা ছেড়ে বাবার গ্যারেজে অটোরিকশা মেকানিকের কাজ শিখতেন। এবং তার স্বপ্ন লালন করতেন.  তিনি তার বাবাকে তার স্বপ্নের কথা বলেছিলেন। তার বাবাও তাকে গাড়ি বানাতে দিয়েছিলেন। তখন থেকেই তার স্বপ্ন পূরণের যাত্রা শুরু হয়।

অটোমোবাইল ইঞ্জিনিয়ারিং ছাড়া কোনো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছাড়াই তিনি ল্যাম্বরগিনি গাড়ির ডিজাইন করা শুরু করেন। গাড়িটি ডিজাইন করার জন্য, তিনি তার গ্যারেজ ক্যালেন্ডারে একটি ল্যাম্বরগিনির ছবি ব্যবহার করেছিলেন।

নেওয়া হয়েছে। গাড়িটির প্রায় পুরো অংশই তার ডিজাইন করা। স্টিলের পাত কেটে নিজের গাড়ির বডি তৈরি করেন। গাড়ি তৈরির পাশাপাশি ইউটিউবের টিউটোরিয়ালের সাহায্য নিয়েছেন তিনি। কম খরচে নিজের জন্য ল্যাম্বরগিনি তৈরি করাই তার মূল লক্ষ্য। অটোরিকশার ওয়ার্কশপে কলম দিয়ে কাজ শিখেছেন।

তাই তার স্বপ্ন এবং অভিজ্ঞতার সমন্বয়ে তিনি যে গাড়িটি তৈরি করেছেন তাতে একটি ইজিবাইকের ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে। নিজের দ্বারা গিয়ার, ব্যাকলাইট, হেডলাইট, সাসপেনশন তৈরি। শুধুমাত্র ব্যাটারি, গাড়ির স্টিয়ারিং এবং চাকা কেনা হয়েছিল। গাড়িটি তৈরি করতে আকাশের প্রায় ১৪ মাস সময় লেগেছে।

সম্প্রতি ঈদুল ফিতরের ছুটিতে তিনি প্রথমবারের মতো নিজের তৈরি ল্যাম্বরগিনি বের করেন। প্রথমে স্থানীয়রা বিশ্বাস করতে পারেননি তিনি এই গাড়িটি বানিয়েছেন।

আকাশের তৈরি গাড়িটি সম্পূর্ণ পরিবেশ বান্ধব! যেহেতু এটি বৈদ্যুতিক গাড়ির মতো ব্যাটারিতে চলে, তাই কোনো কালো ধোঁয়া তৈরি হয় না।

ইঞ্জিনের কোন শব্দ নেই। ফলে এই গাড়ির কারণে কোনো শব্দ দূষণ হবে না। সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তি ব্যবহার করে নির্মিত, গাড়িটির সর্বোচ্চ গতি 45 কিমি প্রতি ঘণ্টা। দ্রুত চলাচল করতে পারে।

Related Articles
Comments

You must be logged in to post a comment.