কম্পিউটার ভাইরাস সম্পর্কে সকল তথ্য জেনে নিন?

Earning : ৳1.200

কম্পিউটার ভাইরাস কি: কম্পিউটার ভাইরাস হলো এক ধরনের ক্ষতিকারক সফটওয়্যার বা ম্যালওয়্যার যা পুনরুৎপাদনে সক্ষম এবং এক কম্পিউটার থেকে অন্য কম্পিউটারে সংক্রমিত হতে পারে।

আমাদের চ্যানেলটি সাবসক্রাইব করুন

অনেকে ভুল ভাবে ভাইরাস বলতে সব ধরনের মেলওয়ারকে বুঝি থেকে, যেমন স্পাইওয়্যার পুনরুৎপাদন ক্ষমতা নেই।

কম্পিউটার ভাইরাস কম্পিউটার সিস্টেমে নানা ধরনের ক্ষতি করে থাকে। এ

দৃশ্যমান ক্ষতি যেমন কম্পিউটারের গতি কমে যাওয়া, হ্যাং হয়ে যাওয়া, ঘন ঘন রিবুট হওয়া ইত্যাদি।

তবে বেশিরভাগ ভাইরাসে ব্যবহারকারীর অজান্তে তার সিস্টেমের ক্ষতি করে থাকে। কিছু কিছু ভাইরাস সিস্টেমের ক্ষতি করো না কেবল ব্যবহারকারীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে।

সি আই এইচ নামে একটি সারা জাগানো ভাইরাস প্রতিবছর ২৬ এপ্রিল সক্রিয় হয়ে কম্পিউটার হাড্ডিসকে ফরমেট করে ফেলত। বর্তমানে কি নিষ্ক্রিয় রয়েছে।

ভাইরাসের ইতিহাস:

কম্পিউটার ভাইরাস প্রোগ্রাম লেখার অনেক আগে ১৯৪৯ সালে কম্পিউটার বিজ্ঞানী জন ভন নিউম্যান এ বিষয়ে আলোকপাত করেন। তার সব অনুরোধ পাদিত প্রোগ্রামের ধারণা থেকে ভাইরাস প্রোগ্রামের আবির্ভাব।

পুনরুৎপাদনশীলতার জন্য এই ধরনের কম্পিউটার প্রোগ্রামকে ভাইরাস নামে প্রথম সম্বোধন করেন আমেরিকার কম্পিউটার বিজ্ঞানী ফ্রেডরিক বি কোহেন ।

ভাইরাস প্রোগ্রাম ও নিজের কপি তৈরি করতে পারে।

৭০ দশকেই ইন্টারনেটের আদি অবস্থা। আরপানেট এ কৃপার নামে একটি ভাইরাস চিহ্নিত করা হয়।

১৯৮২ সালে এলক ক্লোনারৌ ফ্লপি ডিস্ক ব্যবহারের মাধ্যমে সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়ে।তবে

ভাইরাসের বিধ্বংসী আচরণ প্রথম প্রকাশিত হয় ব্রেন ভাইরাসের মাধ্যমে, ১৯৮৬ সালে।

ভাইরাসের ইতিহাস অনেক পুরনো। সর্বপ্রথম ভাইরাস নামে এটি ছিল না। এটি ছিল কম্পিউটার প্রোগ্রাম। যখন কম্পিউটারের উন্নতি হচ্ছিল তখন কিছু অসাধু লোক তা দেখে ঈর্ষা প্রকাশ করছিল।

তখন কম্পিউটারের ক্ষতি করার জন্য, কিছু বিজ্ঞানী এই ভাইরাসটি তৈরি করেন, ভাইরাস কম্পিউটারের অনেক ক্ষতি করে থাকে।

তাছাড়া হ্যাকার কর্তিক কিছু ভাইরাস কম্পিউটারের তথ্য চুরি করে। যেমন একবার সিটি ব্যাংকের সকল ব্যবহারকারীর ইউজারনেম ও পাসওয়ার্ড চলে গিয়েছিল।

Related Articles
Comments

You must be logged in to post a comment.