অনলাইনে আয় করার ১৩ টি সেরা উপায়। পেমেন্ট সরাসরি ব্যাংকে পাবেন

অনলাইনে টাকা আয় করার অনেক সহজ উপায় আছে। কিভাবে অনলাইন থেকে কিভাবে টাকা আয় করতে হয়, সেই সঠিক উপায় জানি না বলে আয় করতে পারি না।বর্তমানে যেকোন ডিভাইস ব্যাবহার করে অনলাইনে খুব সহজে টাকা ইনকাম করা যায়। মোবাইল অথবা কম্পিউটার যেকোন ডিভাইস আপনি ব্যাবহার করতে পারেন।আপনাকে শুধু কোন রাখতে হবে অনলাইনে টাকা আয় মানে ফেসবুকিং, চ্যাটিং,ইউটিউবে ভিডিও দেখা বা গেম খেলা নয়। অনলাইনে টাকা আয় করতে হলে আপনার প্রয়োজন হবে ইচ্ছা শক্তি, ধৈর্য ও পরিশ্রম করার মানসিকতা ।

কারণ আপনি লক্ষ্য করলে দেখতে পারবেন যে ,বর্তমানে চাকরির বাজারে চাকরির জন্য আমাদের অনেক কষ্ট করতে হয় ।অনেক কষ্ট ও টাকা নষ্ট করার পরও আমরা একটি চাকরির বন্দোবস্ত করতে পারি না।আর ত যদিও সম্ভব হয় তাহলে সেখানে অনেক টাকার প্রয়োজন হয়।সুতরাং অনলাইন থেকে টাকা আয় করতে হলে আমাদের কিছুটা ধৈর্য ,সময় ও পরিশ্রম দিয়ে লেগে থাকতে হবে।এখন আমরা অনলাইনে টাকা আয় করার সহজ ও জনপ্রিয় উপায়গুলো জানব।

অনলাইনে টাকা আয় করার কয়েকটি সহজ উপায়

১/ ব্লগিং

ব্লগিং এখন অনেক জনপ্রিয় একটি শব্দ এবং অনলাইনে টাকা  আয় করার জন্য খুব সহজ একটি উপায়।বাংলাদেশসহ সারা পৃথিবীতে অনেক অনেক মানুষ ব্লগিং করে টাকা আয় করছেন।আপনি চাইলে কম্পিউটার দিয়ে কিংবা মোবাইল দিয়ে করতে পারবেন।

আপনি যা জানেন সেই বিষয়ে উপর ব্লগিং লিখতে পারবেন।মূলত লেখালেখি করে হচ্ছে ব্লগ।আপনি আপনার দক্ষতা অনুযায়ী লেখালেখি করতে পারেন।আপনার যদি খেলাধুলা বা ভ্রমণ সম্পর্কে ধারণা থাকে সেটি নিয়েই ব্লগিংয়ে লিখতে পারবেন।আপনি যে বিষয়ে দক্ষ সেই বিষয়েই লিখলে ভালো হবে।আর ব্লগিং আপনি যে কোন বিষয়ের উপর লিখতে পারবেন।যে বিষয়ে আপনার পরিপূর্ন জ্ঞান নেই সেই বিষয়ে কাজ না করে ভালো।দেখা গেছে সেই বিষয়ে কাজ করতে গেলে আপনি আপনার কাজ করার আগ্রহটা হারিয়ে ফেলেছেন।সেই কাজের প্রতি খুব অলসতা আসতে পারে।

ধরুন আপনি খেলাধুলা ,ভ্রমণ ,জীবন উন্নয়নমূলক উক্তি ,শিক্ষা ,বিনোদন ,রান্নাবান্না ইত্যাদি সম্পর্কে ধারণা যদি থাকে ,তাহলে আপনি এখান থেকে যে কোন একটি বিষয় নিয়ে লেখালেখি করতে পারবেন।

মানুষ এখন বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ার সাথে যুক্ত আছে।তাই আপনি এখন থেকে ব্লগিং  করলে খুব সহজেই সফল হতে পারবেন।ব্লগিং করতে হলে আপনি ফ্রি ব্লগ অথবা কিছু টাকা খরচ করে শুরু করতে পারেন।

২/ ফ্রিল্যান্সিং 

অনলাইনে টাকা আয় করার বড় একটি মাধ্যম হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং।দিন দিন ফ্রিল্যান্সিং এর জনপ্রিয়তা বেড়েই চলেছে।এটির মাধ্যমে আপনি প্রতিমাসে ভালো এমাউন্ট আয় করতে পারবেন ।

যারা ফ্রিল্যান্সিং করে তাদেরকে ফ্রিল্যান্সার বলে ।ফ্রিল্যান্সার হচ্ছে এমন একজন ব্যাক্তি যিনি নির্দিষ্ট কোন প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তিবদ্ধ না হয়ে স্বাধীনভাবে কাজ করে থাকে।ফ্রিল্যান্সার হচ্ছে একটি মুক্ত পেশা।একজন ফ্রিল্যান্সার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের হয়ে নিজের দক্ষতা অনুযায়ী কাজ করে থাকে।ফ্রিল্যান্সারের নির্দিষ্ট কোন পারিশ্রমিক থাকে না।কাজ করার জন্য নির্দিষ্ট কোন সময়সীমা বা বাধ্যকতা ও নেই। বাংলাদেশেই ধীরে ধীরে ফ্রিল্যান্সারের প্রসার ঘটছে।সরকার এখন শিক্ষিত বেকার যুবকদের কাজে লাগানোর জন্য ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ দিচ্ছে ।ফ্রিল্যান্সিং করতে হলে কিছুটা ইংরেজি জানতে হবে ।আবার ফ্রিল্যান্সিং করতে প্রাতিষ্ঠানিক কোন শিক্ষা বা সার্টিফিকেট লাগবে না।

৩/ ই - কমার্স

অনলাইনে টাকা আয় করার অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে ইকমার্স।সময় বাঁচানোর জন্য এখন মানুষ অনলাইনের ওপর নির্ভর করছে।অনলাইন থাকে তাদের নিত্য নৈমিত্তিক জিনিসপত্র খুব সহজে অর্ডার করে হাতের কাছে পেয়ে যাচ্ছে। ইকমার্স বলতে অনলাইন থাকে কেনাকাটাকে বুঝিয়ে থাকে।আপনি চাইলে নিজে একটি ওয়েবসাইট বা ফেসবুক পেজ খুলে ইকমার্স শুরু করতে পারবেন।

৪/ ইউটিউব 

আপনি চাইলে ইউটিউব থেকে ভিডিও আপলোড করে খুব সহজেই টাকা আয় করতে পারেন।আর এটি আপনি মোবাইল দিয়েই করতে পারেন।অনেক ইউটিউবার আছে যারা মোবাইল ফোন ব্যাবহার করে ইউটিউব থেকে প্রতি মাসে ভালো পরিমাণে টাকা আয় করছে।তবে আপনি এইটুকু মাথায় রাখবেন অন্য কারো কনটেন্ট কপি করে আপলোড করবেন না ,এতে করে কপিরাইট স্ট্রাইক চলে আসবে।

আপনি চাইলে ঘরে বসে ভিডিও তৈরি করতে পারবেন। ইউটিউবে ইনকাম করতে হলে আপনাকে একটি ইউটিউব চ্যানেল বানাতে হবে।সেখানে নিয়মিত ভিডিও পোষ্ট করতে হবে।।আপনি যে বিষয়ে ভালো জানেন সেই বিষয়ে ভিডিও তৈরি করবেন। এভাবেই একটা সময় আপনার চ্যানেলে মানিটাইজেশন চালু হবে ,ভিডিওতে বিজ্ঞাপন দেখানো হবে,এভাবেই ইউটিউব থাকে আয় হতে থাকবে।

৫/ ফেসবুক ভিডিও 

ইউটিউবের মতো ফেসবুক ভিডিও করে আয় করা যায়।ফেসবুক থেকে টাকা আয় করতে হলে ফেসবুক পেজ থাকতে হবে ।সেখানে ইউটিউবের মতো ভিডিও আপলোড করতে হবে।ফেসবুকও বিজ্ঞাপন দেখানো হয়।আপনি সেই বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে আয় করতে পারবেন।

৬/ ফটোগ্রাফি

 আপনি যদি ছবি তুলতে পছন্দ করেন এবং ভালো মানের ছবি তুলেন ,তাহলে আপনি আপনার তোলা ছবিগুলো অনলাইনে বিক্রি করে আয় করতে পারবেন।আপনি যদি একজন ভালো ফটোগ্রাফার হয়ে তাহলে বিভিন্ন প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যকে ক্যামেরা বন্দি করে প্রতি মাসে অনলাইন থেকে ভালো পরিমাণে টাকা আয় করতে পারেন।

৭/ ই- বুক 

আপনি যা জানেন তো একটি পিডিএফ ফরম্যাটে তৈরি করবেন তারপর সেতু আপনার নিজের বা অন্য যে করি পিডিএফ সেলার বিক্রি করতে পারেন।আপনার লেখাগুলো ভালো হলে খুব অল্প সময়ে পরিচিতি লাভ করতে পারবেন।বই সাথে নিয়ে বহন করার চেয়ে মোবাইলে অনেক সহজ একটা জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

৮/ আর্টিকেল রাইটিং

আপনি যদি একজন ভালো লেখক হয়ে থাকেন বা আপনার লিখতে ভালো লাগে ,তাহলে আপনি লেখালেখি করে আয় করতে পারবেন।যেকোন বিষয়ের ওপর লেখালেখি করাকে আর্টিকেল রাইটিং বলে।এগুলো হতে পারে শিক্ষা বিষয়ক,বিনোদনমূলক,মোটিভেশনাল,ভ্রমণ,কারো জীবন বৃত্তান্ত খেলাধুলা ইত্যাদি বিষয়।

৯/এফিলিয়েট মার্কেটিং করে ইনকাম

অনলাইনে অন্যর প্রোডাক্ট বিক্রি করে কমিশন পাওয়ার মাধ্যমে আয় করাকে এফিলিয়েট মার্কেটিং বলে।আপনি যদি অনলাইন বেশি টাকা ইনকাম করতে চান এবং আপনি যদি পরিশ্রমী এবং ধৈর্যশীল মানুষ হন ,তাহলে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে টাকা আয় করতে পারবেন।

এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয় করার জন্য অবশ্যই আপনাকে অনেক সময় নিয়ে ও কঠোর পরিশ্রম করে যেতে হবে।আপনি যদি ধৈর্য ধরে কাজ করে যেতে পারেন তাহলে একদিন সাফল্য আসবেই।এফিলিয়েট মার্কেটিংএ সফল হওয়ার জন্য আপনাকে কিছু টেকনিক অবলম্বন করতে হবে।প্রোডাক্ট বাছাই এর ক্ষেত্রে আপনাকে  মাথায় রাখতে হবে কোন জিনিসগুলো অনলাইনে কিনতে স্বচ্ছন্দ্য বোধ করে । কোন জিনিসগুলোর অনলাইনে প্রচুর চাহিদা আছে। ঐ সকল প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ করলে আপনি খুব সহজেই সফল হতে পারবেন।

১০/ সার্ভে করে ইনকাম 

ঘরে বসে অনলাইন জরিপ বা সার্ভে করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।সার্ভার বাংলা হচ্ছে জরিপ।সার্ভে করার জন্য আপনাকে উক্ত পন্য বা সেবা সম্পর্কে মতামত দিতে হবে।সার্ভে যারা অংশগ্রহণ করে তাদের টাকা প্রদান করা হয়।সার্ভে বা জরিপের ক্ষেত্রে আপনাকে শুধুমাত্র প্রশ্ন থাকে আপনার পছন্দ অনুযায়ী উত্তর নির্বাচন করতে হবে।

১১/ ফেসবুক পেজ বিক্রি করে আয়

আপনার কাছে যদি বেশি লাইক বা ফলোয়ারযুক্ত পেজ থাকে ,তাহলে আপনি সেটা বিক্রি করে ইনকাম করতে পারবেন। এমন অনেকেই আছেন তার শুধু পেজ তৈরি করে সেই পেজ জনপ্রিয় করে বিক্রি করে টাকা ইনকাম করছে।

১২/ ফেসবুক গ্রুপ থেকে আয়

আপনার যদি বড় কোন গ্রুপ থাকে ,তাহলে আপনি খুব সহজেই সেই গ্রুপ থেকে টাকা আয় করতে পারবেন।অনেক আছেন যারা ফেসবুক গ্রুপ থেকে লক্ষ্য টাকা আয় করেন।

১৩/ গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখে আয়

আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইন shikhe ঘরে বসে আয় করতে পারবেন।অনলাইনে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসগুলোতে আপনার ডিজাইন করা রেখে দিবেন।আর সেই ডিজাইনগুলো বিক্রি হতে থাকবে। 

আপনি যদি অনলাইনে কাজ করতে চান ,তাহলে আপনাকে পরিশ্রম ও ধৈর্য সহকারে কাজ করে যেতে হবে। শুধু অনলাইন এর ক্ষেত্রে না, এটা  যেকোন কাজ করার জন্য আপনাকে সেখানে লেগে থাকতে হবে।তাই আপনি সেই কাজে সফল হতে পারবেন।

Comments

You must be logged in to post a comment.

Related Articles
Recent Articles